Web Analytics Made Easy - StatCounter

আরব কন্যার আর্তনাদ পৃষ্ঠা-০২

মুসলমানরা ব্যর্থ হয়ে প্রত্যাবর্তন করছিলেন। তাদের প্রত্যাবর্তন শুধু ব্যর্থতার গ্লানিই বহণ করছিল না, বিপুল সংখ্যক সহযােদ্ধাকে হারানাে ও আহত হওয়ার যাতনাও তাদের মধ্যে সৃষ্টি করেছিল প্রচণ্ড মনােকষ্ট। তায়েফ নগরী নিত্যদিনের মতােই অপরিবর্তিত ছিল, অজেয় দুর্গপ্রাচীরে যেন মুসলমানদের ব্যর্থতায় উপহাস করছিল।

কিন্তু প্রচণ্ড যাতনা, ব্যর্থতার গ্লানিকে ছাপিয়ে গেল আকস্মিক এক ঘটনা। যেন অলৌকিক ঘটনার মতােই ঘটে গেল ব্যাপারটি। জিরানা থেকে মুসলমানরা তখনও তাঁবু গুটিয়ে মদিনার দিকে রওয়ানা হননি, এমন সময় বনী ছাকিফ কবিলার শীর্ষস্থানীয় ক’জন লােক মুসলমানদের শিবিরের দিকে এগিয়ে এলাে। তারা শিবিরের কাছে পৌছে প্রহরীদের কাছে রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর সাথে সাক্ষাতের অনুমতি চাইলাে। তাদেরকে রাসূল (ﷺ) এর কাছে নিয়ে গিয়ে কয়েকজন শক্তিশালী সাহাবী নাঙ্গা তরবারী ও বর্শা নিয়ে সতর্ক প্রহরা দিতে লাগলেন। কারণ প্রবল শত্রু পক্ষের এই লােকগুলােকে কোন অবস্থাতেই মুসলমানরা নিরাপদ ভাবতে পারছিলেন না। কেননা, বেশ কয়েকটি অমুসলিম গােত্র নবীজী (ﷺ) কে হত্যা করার অব্যাহত চক্রান্ত করছিল। হাওয়াযিন গােত্রের জন্য সমূহ বিপদ সৃষ্টি করেছিল মুসলমানদের হাতে বন্দি তাদের কিছু সংখ্যক নারী ও শিশু। দুর্গ অবরােধের আগে এক যুদ্ধে ওদের পরাজয় ঘটে। তাতে কিছু সংখ্যক হাওয়াযিন নারী ও শিশু মুসলমানদের হাতে বন্দি হয়। তখনকার নীতিতে এরা ছিল যুদ্ধ বন্দি। পরাজয় কিংবা বিজয় অথবা সামরিক চুক্তি ছাড়া তাদের পক্ষে মুসলমানদের হাতে বন্দি হওয়া নারী শিশুদের ফিরে পাওয়ার কোন পথ ছিল না। এদিকে রাসূল (ﷺ) ঘােষণা করে দিলেন যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার পরও যদি শত্রু পক্ষের কোন ব্যক্তি ইসলাম গ্রহণ করে, তাহলে তার সকল সম্পদ ফিরিয়ে দেয়া হবে। হাওয়াযিন গােত্রের আগত লোকদের মধ্য থেকে নেতৃস্থানীয় এক লােক বলল “হে মুহাম্মদ! আমাদের কবিলার লােকসহ সবাই আপনাকে আল্লাহর রাসূল হিসাবে মেনে নিয়েছে। আমাদের কবিলার সবাই আপনার ধর্মে দীক্ষা নিয়েছে।”

আল্লাহর কসম! তােমরা কল্যাণের পথ অবলম্বন করেছ। এটাই “সীরাতে মুস্তাকীম” বললেন রাসূল (ﷺ)।

কবিলার সর্দার বলল, “হে মুহাম্মদ! আপনি তাে আল্লাহর রাসূল! আপনি কি আমাদের নারী শিশু ও সহায়-সম্পদ ফিরিয়ে দেবেন?”

“আমাদের সাথে যুদ্ধ করে এবং আমাদের লােকজনকে হত্যা করে যে সব জিনিস তােমরা হারিয়েছ, সেগুলাে ফিরে পাওয়ার কোন অধিকার তােমাদের নেই” বললেন রাসূল (ﷺ)। তবে যে একক ও অদ্বিতীয় আল্লাহকে তােমরা মহান প্রভু ও রব হিসাবে মেনে নিয়েছ, তাঁর সম্মানে তােমাদের আমি হতাশ করবাে না। তােমাদের কাছে নারী শিশু নাকি সহায়-সম্পদ বেশী প্রিয়?

“আপনি আমাদের নারী শিশুদের অন্তত ফিরিয়ে দিন।” বলল প্রতিনিধি দলের নেতা।

রাসূল (ﷺ) হাওয়াযিন কবিলার নারী শিশুদেরকে মুক্ত করে দেয়ার নির্দেশ দিলেন।

হাওয়াযিন গােত্রের নেতাদের কাছে রাসূল (ﷺ)এর এই উদারতা ছিল আশাতীত। রাসূলের এই উদারতায় গােটা হাওয়াযিন গােত্রের লােক ইসলামে দীক্ষা নিলাে।

এ ঘটনার দুই তিনদিন পর অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তি মুসলমান শিবিরে অনুপ্রবেশ করতে চাইলাে। লােকটির মাথা ও চেহারা ছিল কাপড়ে ঢাকা। চোখ দুটো ছাড়া তার কিছুই দেখা যাচ্ছিল না। নিরাপত্তারক্ষী সাহাবায়ে কেরাম যখন তার প্রবেশ পথ আগলে দাঁড়ালেন, তখন সে নিজের পরিচয় না বলেই রাসূল (ﷺ)এর সাথে সাক্ষাতের আগ্রহ প্রকাশ করল।

“তুমি কি তায়েফ থেকে আসনি? জিজ্ঞেস করলেন একজন নিরাপত্তারক্ষী।

“হ্যা, তায়েফের দিক থেকেই এসেছি আমি।” বলল আগন্তুক।

কিছু সংখ্যক মুসলমান যােদ্ধা ফকীর ও উট চারকের বেশে তায়েফ দুর্গের আশে পাশে বিচরণ করছিলেন, ওদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণের জন্য। কারণ অবরােধ তুলে নিয়ে প্রত্যাবর্তনকালে মুসলমানদের দুর্বলতার সুযােগে ওরা কোন অতর্কিত হামলা করে কি-না এ বিষয়টি আগে ভাগেই জানার জন্য রাসূল (ﷺ) এ গােয়েন্দা ব্যবস্থা করেছিলেন। এসব সাহাবীদের কয়েকজন দুর্গফটক পেরিয়ে এই লােকটিকে মুসলিম শিবিরের দিকে অগ্রসর হতে দেখে ওর পিছু নেন। শিবিরের নিকটবর্তী হলে তার পথ রােধ করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করলে সে নিজের পরিচয় না বলেই নবীজীর সাথে সাক্ষাতের আগ্রহ প্রকাশ করে।

“আমরা তােমাকে তায়েফ দুর্গ থেকে বের হতে দেখেছি বললেন এক সাহাবী। আল্লাহর কসম! তুমি সংকল্পে সফল হতে পারবে না।”

“যে সংকল্প নিয়ে এসেছি তা পূর্ণ করেই যাব।” বলল আগন্তুক। তােমরা কি আমাকে রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর কাছে যেতে দেবে না?”

“কিভাবে দেবাে? তুমি এখনাে পর্যন্ত আমাদেরকে তােমার চেহারাই দেখাচ্ছ না।”

একটানে চেহারা থেকে কাপড় সরিয়ে ফেলল আগন্তুক। আল্লাহর কসম! তুমি তাে মালিক বিন আউফ। তােমার পথ রােধ করার শক্তি আমাদের নেই। দুই তিনজন সাহাবী মালিক বিন আউফকে নবীজীর সকাশে নিয়ে গেলেন।

“বিন আউফ! কোন প্রস্তাব নিয়ে এসেছ, নাকি অন্য কোন উদ্দেশ্য আছে?” জিজ্ঞেস করলেন রাসূল (ﷺ)।

“আমি আপনার ধর্মে দীক্ষা নিতে এসেছি” বলল মালিক বিন আউফ ঠিক সেই মুহূর্তেই ছাকিফ গােত্রপতি মালিক বিন আউফ নবীজীর হাতে হাত রেখে ইসলাম ধর্মে দীক্ষা নিলেন।

মালিক বিন আউফ কেন ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন ইতিহাস এ ব্যাপারে নীরব। মালিক বিন আউফ যখন রাসূল (ﷺ) এর হাতে হাত রেখে স্বেচ্ছাপ্রণােদিত হয়ে ইসলামে দীক্ষা নিলেন, তখন তার ওপর কোন ধরনের চাপ ছিল না। দৃশ্যত সে তখন বিজয়ী গােত্রের সেনাপতি। বস্তুত মালিক বিন আউফের ইসলাম গ্রহণের কোন যৌক্তিক কারণ ছিল না। হতে পারে হাওয়াযিন গােত্রের প্রতিনিধিদের প্রতি সদয় হয়ে রাসূল (ﷺ) তাদের নারী ও শিশুদের মুক্ত করে দেয়া এবং হাওয়াযিন গােত্রের সকল লােক ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারটি মালিক বিন আউফকে প্রভাবিত করেছিল। ইসলাম গ্রহণের পর ছাকিফ গােত্রের এই বীরযােদ্ধা ইসলামের পক্ষে অনেকগুলাে যুদ্ধে বীরত্বের সাথে লড়াই করেন। আজো তায়েফ ইতিহাসের জীবন্ত সাক্ষী হয়ে রয়েছে।

<< পূর্ববর্তী পৃষ্ঠা-০১       পরবর্তী পৃষ্ঠা-০৩ >>

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty + one =

error: Content is protected !!