Web Analytics Made Easy - StatCounter

মহৎ যিনি তিনিই বড়

“মহৎ যিনি তিনিই বড়” গল্পটি “শেখ সাদীর গল্প” হতে চয়নকৃত। চলুন গল্পটি পড়ে দেখি…।

গধার পিঠে চড়ে লােকটা যাচ্ছিল। অনেক জরুরি কাজ তার। গাধা পথে যেতে যেতে পড়ে গেল গর্তে। গাধা তাে গাধাই– বেচারা আর উঠতে পারে না লােকটাও অনেক চেষ্টা করল গাধাটাকে ওঠানাের। কাজ হল না। লােকটার তখন মেজাজ খারাপ। সে গাধাটাকে যা-তা বলে গালাগালি শুরু করল। সময় যাচ্ছে আর লােকটার রাগও বাড়ছে। কে রাজা কে প্রজা, কে শত্ৰু, কে মিত্র সবাইকেই সে একধারসে গালি দিচ্ছে। মানুষ রেগে গেলে তার কাণ্ডজ্ঞান লােপ পায়। লােকটারও তাই হল। রাগে, ক্ষোভে, বিরক্তিতে সে চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করল।

এমন সময় ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিল সেই দেশের বাদশাহ। লােকটার কাণ্ড দেখে বাদশাহ খুব অবাক হলেন। গাধা কাদায় পড়েছে। কিন্তু লােকটা সেই রাগে সবাইকে গালাগালি করছে কেন? বাদশাহর সহচররা ভয়ানক উত্তেজিত। তরবারির এক কোপে লােকটার মুণ্ডুটা ধড় থেকে নামিয়ে দেয়া দরকার। মৃত্যুদণ্ডই ওর একমাত্র শাস্তি।

বাদশাহ এসব কথায় কর্ণপাত করলেন না। তিনি বিবেচনা করে দেখলেন, লােকটা আসলেও খুব বেকায়দা অবস্থায় পড়েছে। এ অবস্থায় কারও মেজাজ ঠিক থাকার কথা নয়। বাদশাহ কোমলস্বরে লােকটাকে জিজ্ঞেস করলেন-ব্যাপারটা কী?

লােকটা তখন সবিস্তারে সব বলল। বাদশাহ বললেন তাহলে আমাদের উচিত তােমাকে সহযােগিতা করা। বাদশাহ তার সহচরদের সঙ্গে নিয়ে গর্ত থেকে গাধাটিকে উদ্ধার করলেন। লােকটি যারপরনাই প্রীত হল। বাদশাহ কিছু অর্থও সাহায্য করলেন লােকটিকে। তারপর বললেন আমি হচ্ছি এই দেশের বাদশাহ। আমার রাজ্যে কেউ বিপদে পড়ে আমাকেই গালাগালি করবে, এ হতে পারে না। বাদশাহ হয়েও আমি তােমার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। তােমার বিপদে আমি সমব্যথী ।

বাদশাহর কথা শুনে লােকটা মাটির সঙ্গে প্রায় মিশে গেল। তার রাগ, ক্ষোভ কমে গেছে। সে এখন সুস্থ মানুষ। বরং লজ্জায় সে কাতর হয়ে উঠল। বাদশাহর সামনে মাথা নত করে সে বলল- আপনি মহৎ মানুষ। আপনি উত্তেজিত হয়ে আমার সঙ্গে যে আচরণ করলেন তা একমাত্র আপনার পক্ষেই সম্ভব। তাই আপনি একজন মহৎপ্রাণ শাসক। আমি সামান্য একজন প্রজা। মহৎ যিনি তিনিই বড়।

<< বাদশাহ এর ক্ষমা

গল্পটি ভাল লাগলে আপনার প্রিয়জন দের সাথে শেয়ার করুন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 3 =

error: Content is protected !!