Web
Analytics




Home  »  মূল্যবান কিছু বাণী   »   মালফূযাত-২১

মালফূযাত-২১

default

মারকাজুল হুদা :-  তরজুমানে আকাবির আরেফবিল্লাহ শায়খুল হাদীস শায়খুল উলামা *হযরত মাওলানা শাহ আবদুল মতীন বিন হুসাইন সাহেব দামাত বারাকাতুহুম* এর
*মালফূযাত*
ঈমানওয়ালার জীবনের সবকিছু  সুন্দর-পরিচ্ছন্ন-গোছানো-উন্নত এবং ব্যাপক হওয়া চাই। ঈমানওয়ালা মানে কি পাগল-ছাগল? ঈমানওয়ালা সবচেয়ে জ্ঞানী লোককে বলে। ঈমানওয়ালার এক উপাধি হলো কাই্য়িস- দূরদৃষ্টি সম্পন্ন। গভীর এবং প্রখর জ্ঞানসম্পন্ন।
কিছু লোক আছে ইসলামের লেবাস-পোশাক পড়ে অপরিচ্ছন্ন-অনুন্নত-নিম্নমানের জীবন যাপন করে। কিন্তু নামায পড়ে ঠিকই লম্বা। রোযা রাখে ৩০টা। হালাল-হারাম মেনে চলে। কিন্তু অগোছালো যিন্দেগী। বিশৃংখল যিন্দেগী। এখন যারা উচ্চ শিক্ষিত বড় বড় ধনী তারা দেখে যে, এই লোক এত দ্বীনদার! অথচ অগোছালো- অপরিচ্ছন্ন-বিশৃংখল। এর থেকে অনেকেই ধারণা করে যে, ভালো দ্বীনদার লোকেরা এই টাইপেরই হয়!
সত্যিকারের আলেমেদ্বীন আল্লাহওয়ালা যারা হন তাদের জীবন তো একদমই পরিচ্ছন্ন-গোছালো-সুশৃংখল এবং উন্নত হয়। রাজা বাদশাহদের জীবনধারা যেখানে হার মানে। মাজযূব বুযুর্গদের কথা ভিন্ন।
হাদীস শরীফে বর্ণিত হয়েছে, আল্লাহ পবিত্র। পবিত্রতাকে পছন্দ করেন। আল্লাহপাক দারুন পরিচ্ছন্ন এবং পরিমার্জিত। এজন্য পরিচ্ছন্ন এবং পরমার্জিত থাকা তিনি পছন্দ করেন। আল্লাহ সুন্দর। তিনি সুন্দর হয়ে থাকাকে পছন্দ করেন।
মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী রহমাতুল্লাহি আলাইহ্ এর সামনে খানা খাওয়ার জন্য প্লেট দিয়েছে গওহরডাঙ্গায়। প্লেটে হালকা হালকা পানি ছিল। তো উনি প্লেটটা একদিকে কাত করে পানির ফোটাগুলো ফেলে দিচ্ছেন আর বলছেন, দেখো! এটা ঠিক হলো
না! আমাকে খেতে দিয়েছ অথচ প্লেটে পানি। প্লেটটা যদি একদম শুকনা থাকে, পরিষ্কার থাকে যাতে পানি নেই তাতে ভাত দিবে, তরকারি দিবে তো যেই নে’মতই এর মধ্যে আসবে তার পুরাটা আমি উপভোগ করব, উপলব্ধি করব। যেই নে’মতটা আমি ভোগ করব সেটা আমার উপলব্ধিতে আসবে যে, কি মজা! যতটা মজা লাগবে ততটা শোকর করার তওফীক নসীব হবে। তোমার পানি মিশ্রিত থাকার কারণে এই নে’য়মতের যতটুকু স্বাদ-লজ্জত নষ্ট হবে  ততটুকু শোকর থেকেও আমি বঞ্চিত হব!
হাজী এমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি  বলতেন, মিয়া! গরমের দিনে ঠাণ্ড পানি খাও। তাহলে দেহের প্রতিটি লোমকূপ থেকে আল্লাহর শোকর বের হবে। প্রাণের ভিতর থেকে শোকর উৎসারিত হবে।
হযরত থানভী রহমাতুল্লাহি আলাইহ্ ঘর থেকে বের হচ্ছেন কোন জায়গায় মাহফিলে যাবেন। হযরতের গায়ের কোর্তা এক জায়গাতে একটু  ছেঁড়া ছিল। তো হযরতের বিবি বলতেছিলেন যে, কি ব্যাপার এতগুলো ভালো কোর্তা থাকার পরে এই ছেঁড়াটা নিয়ে বের হয়েছেন? মুরীদদের দেখাবেন যে, আমি সমস্যায় আছি। পারলে কেউ হাদিয়া-তোহফা দিও। এই প্রদর্শনীর জন্য? হযরত থানভী রহমাতুল্লাহ আলাইহি বললেন যে, আমার বিবির এই কথা আমার খুব পছন্দ হয়েছে। পরে আমি  কোর্তা পাল্টালাম। পরে আমি ভালো কোর্তা গায়ে দিয়ে বের হয়েছি। যাতে আমার মুখাপেক্ষিতা প্রকাশ না পায়। কতটা উন্নত মেধা এবং মননের অধিকারী হন যারা সত্যিকারের এলেম এবং দ্বীনের অধিকারী হন, সত্যিকারের মুসলমান হন!
(মারকাজুল হুদা ডটকম)

Leave a Reply

Thanks for choosing to leave a comment.your email address will not be published. If you have anything to know then let us know. Please do not use keywords in the name field.Let's make a good and meaningful conversation.

8 + 7 =